সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:৪৬ পূর্বাহ্ন

সিনহা কেস আর কত দিন?

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার |
  • প্রকাশ : রবিবার, ২৩ আগস্ট, ২০২০
  • ৩০৬

 

সাবেক প্রধান বিচারপতি সিনহা ইস্যু খতম হয়ে গেছে সেই কবেই। তিনি দেশছাড়া। এখন চলমান অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা কেস। তিনি হয়েছেন দুনিয়াছাড়া। এ হত্যার তদন্ত কর্মকর্তা বদল শুরু হয়েছে। বরগুনার মিন্নি ধাঁচে এ কেসে শিপ্রাকে নায়িকা করে টেনে আনার চেষ্টা বেশ জোরদার। সেইসঙ্গে সিনহাকে নয়নবন্ডের কাতারে নিয়ে যাওয়ার একটি আয়োজন আঁচ হচ্ছে। খলনায়ক ইলিয়াস কোবরাকে তো আনা হয়েছেই। কী উদ্দেশ্য উদ্ভট এই মহলটির ?
সব মিলিয়ে সাবেক ধাঁচেই এগুচ্ছে বর্তমান কেস। সাগর-রুনি, তিন্নি, মিন্নি, তনু বা একরাম ইস্যুর চেয়ে ততো ভিন্ন নয়। শিপ্রা বা তার বক্তব্য কি সিনহা হত্যার বিচারের জন্য যথেষ্ট? শিপ্রার মদ খাওয়া, বয় ফ্রেন্ড থাকা- না থাকার সাথে মেজর সিনহা হত্যার কী যোগসূত্র আবিষ্কার করতে চান তারা? সিনহাকে শিপ্রা কি বলে সম্বোধন করতো সেটাও হত্যার মামলার উপকরণ?
ঘটনাটা একটা খুনের। পুলিশের হাতে একজন নাগরিক খুনের ঘটনা। প্রেমঘটিত হত্যাকাণ্ড নয়। শিপ্রা বা তার সঙ্গীরা কেউই এই মামলায় সন্দেহভাজন নন। তা হলে শিপ্রার সিগারেট খাওয়া কিংবা মদের বোতল হাতে ব্যক্তিগত ছবি ফেসবুকে প্রচারকারীরা সিনহা হত্যার বিচারকে কোনদিকে নিতে চান?
এর বাইরে বন্ধুকযুদ্ধ না চাইলেও আদালতের বিচার ফেসবুকে করতে চান একটি মহল। মুখোমুখি দাঁড় করাতে চান পুলিশ আর সেনাবাহিনীকে। তদন্তাধীন বিষয় নিয়ে কথা বলা অপরাধ তা মুখে বললেও মানতে চান না তারা। গরম-গরম ধুমধাম বিচার চান। আর বিচার মানেই ফাঁসি। এই মানসিকতা কতোটা সভ্য? কিছু কিছু রিপোর্ট পড়ে যে অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা সম্পর্কে নতুন ধারণা জন্ম নিচ্ছে, সেটারই বা কী হবে? নতুন ইস্যু, ঘটনা বা কেস আসতে আর কতোদিন লাগবে?

লেখকঃ বিশেষ প্রতিবেদক এইচ টিভি নিউজ | সাবেক কাউন্সিলরঃ বিএফইউজে-বাংলাদেশ -| সদস্য ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে) ও মানবাধিকার সংগঠক _|

Share This Post

আরও পড়ুন