শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, ০৭:৫২ অপরাহ্ন

সালানা ওরছের সাফল্য কামনা করেছেন প্রধানমন্ত্রী

প্রেস বিজ্ঞপ্তি
  • প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১১ মার্চ, ২০২১
  • ১৬৩

পবিত্র মিরাজুন্নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামা ও সালানা ওরছে হযরত গাউছুল আজম রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু উপলক্ষ্যে ঈছালে ছাওয়াব মাহফিলের সাফল্য কামনা করেছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার (১১ মার্চ) মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটি বাংলাদেশ এর পক্ষ হতে প্রকাশিত বিশেষ ক্রোড়পত্রে এ কথা জানান তিনি।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বাক্ষরিত ক্রোড়পত্রে তিনি বলেন, চট্টগ্রাম জেলার রাউজানের অন্তর্গত কাগতিয়া আলীয়া গাউছুল আজম দরবার শরীফের প্রতিষ্ঠাতা খলিলুল্লাহ, আওলাদে মোস্তফা, খলিফায়ে রাসূল হযরত শায়খ ছৈয়্যদ গাউছুল আজম রাদ্বিয়াল্লাহু আনহুর পঞ্চম বেছাল শরীফ স্মরণে আয়োজিত সালানা ওরছে গাউছুল আজম উপলক্ষে সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিক মোবারকবাদ জানাই এবং তাঁর আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ইসলামের খেদমতে অসামান্য অবদান রেখেছেন। তিনি বাংলাদেশে ইসলামের সঠিক শিক্ষা ও মর্মবাণী জনগণের মধ্যে প্রচার ও প্রসারের লক্ষ্যে ১৯৭৫ সালে ইসলামিক ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করেন। জাতির পিতা মাদরাসা শিক্ষা বাের্ড পুনর্গঠন ও সম্প্রসারণ করেন। তিনি টঙ্গিতে বিশ্ব ইজতেমা, কাকরাইল মসজিদ সম্প্রসারণ ও জামিয়া মাদানিয়া দারুল উলুম যাত্রাবাড়ী কওমী মাদরাসার জন্য জমি বরাদ্দ করেন। জাতীয় পর্যায়ে ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) উদযাপন, বেতার ও টেলিভিশনে প্রতিদিনের অনুষ্ঠান শুরু ও সমাপ্তিতে কোরআন তেলাওয়াতের ব্যবস্থা করেন। তিনি আইন করে মদ, জুয়া, হাউজি ও অসামাজিক কার্যকলাপ নিষিদ্ধ করেন। স্বল্পব্যয়ে সমুদ্রপথে হজ করতে হজযাত্রীদের জন্য ‘হিজবুল বাহার’ নামে একটি জাহাজ ক্রয় করেন। এসবই তিনি করেছেন ইসলামের সুমহান মর্যাদা সমুন্নত রাখার লক্ষ্যে।

সরকারপ্রধান বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ও আদর্শকে সামনে রেখে সবসময়ই ইসলামের প্রচার ও প্রসারে কাজ করেছে। গত ১২ বছরে আমরা ইসলামের উন্নয়নে ব্যাপক কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেছি। আমরা দেশে প্রথম একটি আরবি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছি। পবিত্র কোরআনের ডিজিটাল ভার্সন তৈরি করেছি। শিশুদের মধ্যে বিনামূল্যে পবিত্র কুরআনুল করীম বিতরণ করা হচ্ছে। ইমাম-মুয়াজ্জিন কল্যাণ ট্রাস্ট গঠন করা হয়েছে। হজের সার্বিক কার্যক্রম ডিজিটাল প্রযুক্তির আওতায় আনা হয়েছে। আমরা মসজিদভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কেন্দ্রে প্রাথমিক শিক্ষা কার্যক্রম চালু করেছি। বিভিন্ন মাদরাসায় অনার্স কোর্স চালু করা হয়েছে। কওমী মাদরাসা স্বীকৃতির বিল পাস করা হয়েছে। দাওরায়ে হাদীসকে মাস্টার্সের সমমান দেওয়া হয়েছে। এবতেদায়ী মাদরাসার মেধাবী শিক্ষার্থীদের বৃত্তি প্রদান করা হচ্ছে। আমাদের সরকার দেশের সব জেলা ও উপজেলায় একটি করে নতুন মসজিদ কাম ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণ করছে। সারাদেশে মসজিদভিত্তিক বিশেষায়িত প্রাথমিক শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। আমি সালানা ওরছে গাউছুল আজম- এর সার্বিক সাফল্য কামনা করি।

প্রসঙ্গত, আজ বৃহস্পতিবার (১১ মার্চ)চট্টগ্রাম নগরীর বায়েজিদস্থ কাগতিয়া আলীয়া গাউছুল আজম দরবার শরীফ কমপ্লেক্স ময়দানে পবিত্র মিরাজুন্নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামা ও সালানা ওরছে হযরত গাউছুল আজম রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু উপলক্ষ্যে পবিত্র ঈছালে ছাওয়াব মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। ঈছালে ছাওয়াব মাহফিলে সকলের প্রতি দ্বীনি দাওয়াত দিয়েছেন কাগতিয়া আলীয়া গাউছুল আজম দরবার শরীফের অঙ্গ সংগঠন মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটি বাংলাদেশ।

Share This Post

আরও পড়ুন