মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ০২:০৪ অপরাহ্ন

সরকারী নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে হালদা ভেড়ীবাধে জনসমাগম

খোরশেদ আলম
  • প্রকাশ : শনিবার, ১১ জুলাই, ২০২০
  • ৬২০

যেখানে দেশের সব পর্যটন কেন্দ্র করোনা ভাইরাসের কারনে বন্ধ রাখা হয়েছে,সেখানে প্রতিদিন বিশেষ করে শুক্রবারে হাটহাজারীর উত্তর মাদার্শা রামদাশ হাটের পাশে ভেড়ী বাধেঁ জমায়েত হয় হাজারো দর্শনার্থী।সামাজিক দুরত্বের কোন বালাই নেই,অল্প কিছু লোক ছাড়া বাকি সবার মুখে কোন মাক্স পর্যন্ত নেই।যে কেউ এখানে আসলে মনে হবে,দেশে কখনো করোনা ভাইরাস ছিলোনা নাই।ঈদুল ফিতরের পর থেকে কিছুদিন স্থানীয় তরুনেরা এসব বহিরাগত লোকদের এই মহামারি করোনাকালীন সময়ে ভেড়ী বাধেঁ আসতে বাধা দিলেও তারা এসবের কর্নপাত না করে প্রতি শুক্রবার শনিবার হাজারো লোকজনের জমায়েত করে। খোজ নিয়ে জানা যায় এরা অনেক দুর দুরান্ত থেকে ভেড়ী বাধে বাইক বা বিভিন্ন যানবাহন নিয়ে আসে।যা এই এলাকায় করোনার প্রজনন বাড়িয়ে দিবে মনে করেন স্থানীয়রা।নদীতে নৌকা আর ইঞ্জিনচালিত সাম্পানও চলচে সমানতালে ফলে দিন দিন বেড়ে যাচ্ছে লোকসমাগম।।
এছাড়া এই ভেড়ী বাধে প্রায় সময় ভরদুপুরে বা সন্ধ্যার পর এখানে চলে মাদক বেচাকিনি,সেবন ও স্কুল কলেজ পড়ুয়া চাত্রছাত্রিদের অবাধ মেলামেশা।এসব কর্মকান্ডে এলাকার পরিবেশ একবারে নষ্ট হতে চলেছে।এই নিয়ে এলাকাবাসীরা ক্ষোভ প্রকাশ করছে।এব্যাপারে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মনজুর হোসেন মাসুদ বলেন,এই মহামারীতে জনজমাগম ঠেকাতে সরকারী আদেশ আসার পর থেকে আমি ইউপি চৌকিদারদের নিয়ে একটা পাহারারত টিম করে দিয়েছি যাতে ভেড়ী বাধে জনসমাগম না ঘটে। কিন্তু এতো আদেশ নির্দেশের পরও এসব মানুষ নিজেদের বা নিজ পরিবারের কথা চিন্তা না করে বেড়ীবাধে ঘুরতে আসে।আগামীতে যাতে লোকসমাগম না ঘটে কঠোর ব্যাবস্থায় নিতে হবে”
স্থানীয়রা এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমিনের দৃষ্টি আকর্ষন করেন।

Share This Post

আরও পড়ুন