বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১, ০৬:২৩ পূর্বাহ্ন

রাজধানীসহ চার সিটিতে পশুরহাট না বসাতে জাতীয় কমিটির পরামর্শ

বিশেষ প্রতিবেদক মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার
  • প্রকাশ : শনিবার, ১১ জুলাই, ২০২০
  • ২২২

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস সংক্রমণের এমন পরিস্থিতিতে আসন্ন ঈদুল আজহা উদযাপন করবে দেশবাসী। তাই এই ঈদে কিভাবে পশুরহাট বসবে তা নিয়ে চিন্তা-ভাবনা করছে সরকার। তবে করোনার ব্যাপক বিস্তার রোধে ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর ও চট্টগ্রামে পশুরহাট না বসানোর পরামর্শ দিয়েছে কোভিড-১৯ প্রতিরোধ বিষয়ে গঠিত জাতীয় কমিটি।

এছাড়া করোনার বিস্তার রোধে ঈদের ছুটিতে ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর ও চট্টগ্রাম থেকে অন্যান্য স্থানে যাতায়াত না করার জন্যও পরামর্শ দিয়েছেন তারা।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, শনিবার (১১ জুলাই) কোভিড-১৯ জাতীয় পরামর্শক কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ এবং সদস্য সচিব অধ্যাপক ডা. মীরজাদি সেব্রিনা ফ্লোরা স্বাস্থ্য মহাপরিচালকের কাছে তাদের এ সুপারিশ পেশ করেন।

চার সিটিতে ডিজিটাল পদ্ধতিতে কোরবানির পশু কেনাবেচার পরামর্শ দিয়ে বলেন, তবে দেশের অন্যান্য স্থানে সংক্রমণ প্রতিরোধ নীতিমালা অনুযায়ী কোরবানির পশুরহাট বসানো যেতে পারে।

কোরবানির পশুরহাট স্থাপন ও পশু জবাইয়ের ক্ষেত্রেও কয়েকটি সুপারিশ করেন তারা। সেগুলো হলো-

শহরের অভ্যন্তরে কোরবানির পশুরহাট না বসানো; খোলা ময়দানে পশুরহাট বসাতে হবে, যেখানে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা এবং সংক্রমণ প্রতিরোধে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা গ্রহণ সম্ভব; পঞ্চাশোর্ধ্ব ব্যক্তি এবং অসুস্থ ব্যক্তির পশুরহাটে যাওয়া থেকে বিরত থাকা; পশুরহাটে প্রবেশ ও বাইরে পৃথক রাস্তা রাখা; পশুরহাটে আগমনকারী সকল ব্যক্তি মাস্ক পরিধান বাধ্যতামূলক; কোরবানির পশু বাড়িতে জবাই না করে সিটি করপোরেশন নির্ধারিত স্থানে করা; অনলাইনে অর্ডারের মাধ্যমে বাড়ির বাইরে কোরবানি দেয়া সম্ভব হলে তা করার জন্য উৎসাহিত করা।

করোনাকালে আসন্ন ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে কোরবানির পশু পরিবহনের পরিকল্পনা নিয়েছে বাংলাদেশ রেলওয়ে। তাছাড়া গবাদিপশু বিপণন ও পরিবহনের সমস্যা সমাধানে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরে স্থাপন হচ্ছে হটলাইন। মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র কর্মকর্তারা সার্বক্ষণিক হটলাইনে সম্পৃক্ত থাকবেন।

Share This Post

আরও পড়ুন