বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ০৫:২৭ পূর্বাহ্ন

নাজিরহাট বড় মাদ্রাসার সৃষ্ট সংকট নিয়ে এমপির সংবাদ সম্মেলন প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে ২৮অক্টোবর শুরা কমিটির বৈঠক

ফটিকছড়ি প্রতিনিধি
  • প্রকাশ : রবিবার, ২৫ অক্টোবর, ২০২০
  • ১৭৬

ফটিকছড়ি উপজেলার শতবর্ষী কওমী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জামিয়া আরবিয়া নছিরুল ইসলাম নাজিরহাট বড় মাদ্রাসার পরিচালক পদ নিয়ে সৃষ্ট সংকট নিরসন ও সরকারের অবস্থান নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছে ফটিকছড়ির সাংসদ আলহাজ্ব সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারী।
রবিবার (২৫অক্টোবর) দুপুর ১২টায় নাজিরহাট বড় মাদ্রাসায় অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এমপি বলেন- পূর্বের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আগামী ২৮ অক্টোবর মাদ্রাসা পরিচালনার সর্বোচ্চ পরিষদ শুরা কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।
বৈঠকে শীর্ষ আলেমগণ যে সিদ্ধান্ত নেবেন সে সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মাদ্রাসার পরিচালক নিয়োগ সহ পরবর্তী সকল কার্যক্রম পরিচালিত হবে।
এতে আমাদের সরকার ও প্রশাসন সহযোগীতা করবে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে এ ব্যাপারে আলোচনা হয়েছে জানিয়ে এমপি নজিবুল বশর বলেন-প্রধানমন্ত্রী আমাকে দায়িত্বে নিয়ে শুরা কমিটির বৈঠক আয়োজনে যা করা প্রয়োজন তা করতে বলেছেন।

শুরা কমিটির বৈঠকে আগত সকল ওলামায়ে কেরামদের প্রশাসন নিরাপত্তা দেবে।
বৈঠকে কেউ যদি কোন গোলযোগ সৃষ্টি করতে চাই, তাহলে প্রশাসন তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।
সংবাদ সম্মেলনে শুরা কমিটির প্রধান আল্লামা শাহ মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী,উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ সায়েদুল আরেফিন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হোসাইন মুহাম্মদ আবু তৈয়ব,পৌর মেয়র সিরাজদৌল্লাহ, থানার ওসি বাবুল আকতার সহ প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, গতকাল শনিবার দুপুরে আগামী ২৮অক্টোবর অনুষ্ঠিতব্য শুরা কমিটির বৈঠকের বিরুদ্ধতা করে এলাকাবাসী ও মাদ্রাসার ছাত্র-শিক্ষকদের ব্যানারে এক সংবাদ সম্মেলন আহবান করেন মাদ্রাসার বর্তমান পরিচালক (দাবীদার) মাওলানা সলিমুল্লাহ।
সংবাদ সম্মেলন চালাকালে উপস্থিত কয়েকজন বক্তা আগামী ২৮অক্টোবর শুরা বৈঠক প্রতিহতের ঘোষণা দিলে উপস্থিত ছাত্রদের মধ্যে একটি পক্ষ ওই বক্তব্যের বিরুদ্ধতা করে শুরা কমিটির বৈঠক চায় শ্লোগান শুরু করে। তখন ছাত্রদের মধ্যে বাঁশ ও লাঠিসোঁটা নিয়ে সংঘর্ষ বেঁধে যায়।
পরিস্থিতি উত্তপ্ত হতে থাকলে সেখানে উপস্থিত পুলিশ সদস্যরা উভয় পক্ষকে শান্ত করার চেষ্টা করে।
ঘটনাস্থলে ব্যাপক পুলিশ ও র‍্যাবের সদস্যরাও অবস্থান নেয়।
সন্ধ্যা পর্যন্ত ছাত্রদের বিক্ষোভ অব্যাহত থাকলে মাদ্রাসায় উপস্থিত হন সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারী।
তার হস্তক্ষেপে মাদ্রাসার পরিস্থিতি শান্ত হয়।

Share This Post

আরও পড়ুন