মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২২, ০৭:০৯ অপরাহ্ন

নরসিংদীতে অপহরণকারী চক্রের দুই সদস্য গ্রেফতার, ভিকটিম উদ্ধার

নরসিংদী প্রতিনিধি
  • প্রকাশ : সোমবার, ২৪ আগস্ট, ২০২০
  • ২২২

নরসিংদীতে আন্তঃজেলা অপহরণকারী চক্রের দুই সদস্য নুরুল ইসলাম (৫০) ও মোসাঃ জরিনা আক্তার সাথীকে (৩০) গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গ্রেফতারকৃত আসামি নুরুল ইসলাম নারায়ণগঞ্জ জেলার আড়াইহাজার উপজেলার ছনপাড়া গ্রামের মৃত ফজলুর রহমানের ছেলে ও অপর আসামি মোসাঃ জরিনা আক্তার সাথী নরসিংদীর মাধবদী থানার পাকুরিয়া গ্রামের নুরুল ইসলামের স্ত্রী।

পুলিশ জানায়, অপহরণের শিকার ভিকটিম রিতু সিংহ সদর উপজেলার পাঁচদোনা বাজারের রিতু মেডিকেল হল নামে একটি মেডিসিনের দোকান চালায়। প্রতিদিনের ন্যায় ২২ আগস্ট বাড়ি থেকে মেডিসিনের দোকানে এসে ব্যবসার কার্যক্রম পরিচালনা করেন তিনি। এদিকে একই দিন রাত ৯ টায় রিতু সিংহের কাকাতো ভাই মিঠুন সিংহের বন্ধুর মোবাইল নম্বরে রিতুর মোবাইল নম্বর হতে কল আসে যে, রিতু সিংহ অজ্ঞাতনামা লোকের নিকট আটক আছে এবং ১ লক্ষ টাকা মুক্তিপন দিলে ভিকটিমকে মুক্তি দিবে, নতুবা মেরে ফেলবে।

ঘটনাটি মিঠুন সিংহ অবগত হয় এবং মোবাইলে যোগাযোগ করলে আসামীরা ভিকটিমকে মারমিট করে কান্নার শব্দ শোনায়। পরবর্তীতে ভিকটিমের আত্মীয়স্বজন অপহরণকারীদের দেওয়া বিকাশ নম্বরে ৩৫ হাজার টাকা মুক্তিপন দিলেও তারা ভিকটিমকে মুক্তি দেয়নি।

ভিকটিমের লোকজন নিজেরা চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়ে ২৩ আগস্ট সকালে নরসিংদী পুলিশ সুপার কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে অপহরণের বিষয়টি মৌখিকভাবে অবগত করেন। মৌখিক অভিযোগের ভিত্তিতে এসআই জাকারিয়া আলম তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় আসামীদের অবস্থান শনাক্ত করে পাঁচদোনা মোড় এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন।

এসময় আসামীরা পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ভিকটিমের সাথে থাকা মোবাইল সেট, জাতীয় পরিচয়পত্র, ডাচ বাংলা ব্যাংকের এটিএম কার্ড রেখে ২৩ আগস্ট বিকেল সাড়ে ৩টায় কাকশিয়া এলাকায় ভিকটিমকে ছেড়ে পালিয়ে যায়।

পরবর্তীতে এসআই জাকারিয়া আলম ভিকটিমকে নিয়ে মাধবদী থানার পাকুরিয়া এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে একই দিন বিকেল সন্ধায় অপহরণ ঘটনায় জড়িত আন্তঃজেলা অপহরণ চক্রের সদস্য নুরুল ইসলাম ও মোসাঃ জরিনা আক্তারকে গ্রেফতার করেন এবং আসামীদের দখল হতে লুন্ঠিত মালামাল উদ্ধার করেন।

ভিকটিমকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, অপহরণকারী চক্রের মহিলাটি ভিকটিমকে রং নম্বরে কথা বলে ফুসলাইয়া কৌশলে তার বাড়িতে নিয়ে আটক করে রাখে। মহিলার সাথের অপহরণকারী চক্রের অপর সদস্যরা মারপিট করে এবং মুক্তিপন আদায় করে। এ ঘটনায় নিয়মিত মামলা রুজু করা হয়েছে বলে জানান পুলিশ।

Share This Post

আরও পড়ুন