বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০৩:৪৮ অপরাহ্ন

তেতুলিয়া আর কালাবদর নদীর ভাংগনে দিশেহারা মেহেন্দিগঞ্জ দক্ষিন পাড়ের ১০ হাজার পরিবার।

নুরনবী, মেহেন্দিগঞ্জ, বরিশাল।
  • প্রকাশ : বুধবার, ৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ২৫১

বরিশাল জেলার মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা ৪টি ইউনিয়রের ১৬টি ওয়ার্ডে তেতুলিয়া’র ভাঙ্গনে দিশেহারা হয়ে গেছে প্রায় ১০হাজার পরিব।যত দূরে চোখ যায় শুধু পানি আর পানি কেউ বলে না দিলে বোঝার উপায় নেই মাত্র কয়েক মাস আগেও ছিল এখানে পিচ ঢালাই রাস্তা বসত-বাড়ি স্কুল কলেজ সহ পূর্নাঙ্গ একটা জনবসতি।১০টি উপজেলা নিয়ে গঠিত বরিশাল জেলা তার মধ্যে একটি মাত্র উপজেলা মেহেন্দিগঞ্জ যার সাথে সড়কপথে যোগাযোগ নেই বরিশাল জেলার। চারদিকে নদী মাঝখানে দীপ উপজেলা মেহেন্দিগঞ্জ এর ফলে ভাঙ্গনের প্রবনতা এই এঞ্চলে বেশি। মেহন্দিগঞ্জ উপজেলা বরিশাল জেলা সদর থকে প্রায় ৪০ কিলোমিটার পূর্ব- উত্তর দিকে অবস্থিত এবং অঞ্চলের মধ্যে সর্বোধিক নদী সমৃদ্ধ ও নদী পরিবেষ্ঠিত একটি উপজেলা। এর উত্তরে রয়েছে হিজলা উপজেলা, পূর্বে ও দক্ষিণে ভোলা সদর উপজেলা, দক্ষিন ও পশ্চিমে বরিশাল সদর উপজেলা এবং পশ্চিমে মুলাদী উপজেলা। উপজেলার মোট আয়তন ৪২৬.৪৫ বর্গকিলোমিটার।১৬ টি ইউনিয় ১টি পৌরসভা নিয়ে গঠিত মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলাএই উপজেলায় যে ৪টি ইউনিয়নে ভাঙ্গনের প্রবনতা বেশি সেগুলি হল;
শ্রীপুর,চরগোপালপুর,জাঙ্গালিয়া ও আলিমাবাদ ইউনিয়ন পরিষদ । এর মধ্যে জাঙ্গালিয়া,চরগোপাল পুর ও শ্রিপুর ইউনিয়নের ৭০ / ৮০ শতাংশ নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে, সামনের ডিসেম্বরে নির্বাচন এই নদীগর্ভে বিলীন হওয়া হাজার হাজার ভোটার বিভিন্ন ইউনিয়নে ছিন্নভিন্ন হয়ে গেছে এমত অবস্থায় নদী ভাঙ্গন ঠেকাতে দিশেহারা হয়ে পরছে এলাকাবাসি প্রধানমন্ত্রীর কাছে আকুল আবেদন এইসব ভিটে হারা মানুষের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করে করা হোক ।এনিয়ে চরগোপালপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রভাষক সামছুল বাড়ি মনির জানান আমার ইউনিয়ন ও জাঙ্গালিয়া ইউনিয়নের যোগাযোগের একটা মাত্র মাধ্যম ছিলো পিচ ঢালাই রাস্তা সেটাও প্রায় ৪কিঃমিঃ নদীতে ভেঙ্গে গেছে।আমার এলাকার মানুষ নদী ভাংগনে দিশেহারা হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে।

লেঙ্গুটিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও ২ হাজার আঠের সাথে নব নির্মিত সাইক্লোন সেন্টার ও লেঙ্গুটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি নদী থেকে ২০ফিটের মতো দুরত্বে অবস্থান করছে, সেটাও হয়ত নদীগর্ভে বিলিন হয়ে যাবে।প্রাথমিক ভাবে সাংসদ পংকজ নাথ এমপি জিও ব্যাগ ফেলে ভাঙ্গন রোধে চেষ্টা করেছে সেটাতে সাময়িক সময় নদী ভাঙ্গন বন্ধ থাকলেও এখনো সেই আগের থেকেও ভয়াবহ আকার নিয়েছে তেতুলিয়া নদী। প্রধানমন্ত্রী’র উপহার একটি মুজিব শতবর্ষ ভবন আমিরগঞ্জ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে নির্মান করে, তখন নদী থেকে আধা কিলোমিটারে’র ও বেশি দূরে ছিলো আজ সেই স্কুল উদ্ভোদনের পূর্বেই নদীগর্বে বিলিনের পথে।
মাননীয় এমপি পংকজ নাথ এর কাছে অনুরোধ যানাই তিনি যেন সংসদে প্রধানমন্ত্রী’র কাছে মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা’র সাধারণ মানুষের দুঃখ দুর্দশার কথা তুলে ধরেন। এই নদী ভাঙ্গনের স্থায়ী একটা সমাধান করেন। এভাবে চলতে থাকলে অচিরেই মেহেন্দিগঞ্জের’ মানচিত্র থেকে মুছে যাবে দক্ষিণ পাড়ের তিনটি ইউনিয়ন ।

Share This Post

আরও পড়ুন