রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ০৬:৫৮ অপরাহ্ন

চট্টগ্রামে গণপরিবহনে অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলাচলের বিধিনিষেধ মানছেনা কেউ,বাড়া নিচ্ছে অতিরিক্ত

বিশেষ প্রতিনিধি
  • প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন, ২০২১
  • ৩২

করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে গণপরিবহনে মোট আসনের অর্ধেক নিয়ে যাত্রীর কাছ থেকে অতিরিক্ত ৬০ শতাংশ ভাড়া আদায়ের কথা থাকলেও চট্টগ্রামে তা না মানার অভিযোগ উঠেছে।

বৃহস্পতিবার সরেজমিন চট্টগ্রাম নগরীতে চলাচল রত যাবাহনে দেখা যায়, পাশাপাশি দুই সিটে একজন বসার নিয়ম থাকলেও সব বাসেই শতভাগ আসনে যাত্রী বসছে।
এমনকি কোনো বাসে যাত্রীদের গাদাগাদি করে দাঁড়িয়ে থাকতেও দেখা গেছে। বাসে জীবাণুনাশক স্প্রে করার ব্যবস্থা দেখা যায়নি।যাত্রীদের কয়েকজনের মুখে মাস্ক থাকলেও চালক, তার সহকারী কিংবা সুপারভাইজারের মুখে কোন মাস্ক দেখা যায়নি।পরিবহনগুলো সরকার নির্দেশিত বর্ধিত ভাড়ার বিষয়টি মানলেও স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না।
গণপরিবহনের যাত্রী একজন কলেজ শিক্ষার্থী নাসরিন সুলতানা মুরাদপুর থেকে উঠেছেন আগ্রাবাদ ঘামী বাসে।তিনি বলেন, বাসে স্বাস্থ্যবিধি, সামাজিক দূরত্ব, শারীরিক দূরত্ব কোনোটাই মানা হচ্ছে না। তারপরও নেওয়া হচ্ছে ৬০ শতাংশ বর্ধিত ভাড়া।

গণপরিবহনে চলাচলের জন্য গণবিজ্ঞপ্তি দিয়েছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)। এতে বলা হয়েছে- ধারণক্ষমতার ৫০ ভাগের অধিক যাত্রী পরিবহন করা যাবে না, বিদ্যমান ভাড়ার অতিরিক্ত ৬০ শতাংশ এর বেশি ভাড়া নেওয়া যাবে না, সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ এলাকাতে আন্তঃজেলা যান চলাচল সীমিত করতে হবে, প্রয়োজনে বন্ধ রাখতে হবে, গণপরিবহনে যাত্রী, চালক, সুপারভাইজার/কন্ডাক্টর, হেলপার এবং টিকেট বিক্রি কেন্দ্রের দায়িত্বে নিয়োজিত ব্যক্তিদের মাস্ক পরিধান/ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে, তাদের হাত ধোয়ার জন্য পর্যাপ্ত সাবান-পানি/হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা রাখতে হবে, যাত্রার শুরু ও শেষে যানবাহন পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নসহ জীবাণুনাশক দিয়ে জীবাণুমুক্ত করতে হবে, বাসের ওঠার ও নামার ক্ষেত্রে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে, গণপরিবহনের জন্য প্রযোজ্য অন্যান্য স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে।কিন্তু কেউ এসব মানছে কি ?

বাসযাত্রী নুর হোসেন বলেন, আমরা আগে যে রকম করে বাসে চড়তাম, এখনও সেই রকম চড়ছি। ভাড়া নিয়ে কেবল হয়রানি হচ্ছি, গায়ে গা লাগিয়ে বসছি। ভিড়ভাট্টাও আগের মতন। শুধু ভাড়া নেচ্ছে দ্বিগুণ। সরকারি সিদ্ধান্ত ওরা মানে না আর এসব দেখারও কেউ নেই। প্রতিবাদ করেও কোনো লাভ হচ্ছেনা।

এসব চট্টগ্রাম মিনিবাস ও বাস মালিক সমিতির নেতারা বলেন, করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে প্রশাসনের নানা প্রচারণার পরেও অনেক বাসে সঠিকভাবে স্বাস্থ্যবিধি এবং সামাজিক দূরত্ব মানছে না। বিষয়টি নিয়ে আমরা পরিবহন সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলেছি। কিন্তু তারা বলছে- অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলাচলে তাদের লোকসান হচ্ছে। তারপরও আমরা সংক্রমণরোধের পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে চেষ্টা করছি।

চট্টগ্রাম নগরীর নিয়মিত যাত্রী অর্জুন কুমার নাথ বলেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে লকডাউনে অর্ধেক যাত্রী নিয়ে গণপরিবহন চলাচলের বিধিনিষেধ থাকলে-ও তা মানা হচ্ছে না, গাড়ীতে যাত্রী সিটভর্তি সহ দাড়িয়েও নিচ্ছে। ভাড়া কিন্তু ঠিকই দ্বিগুণ গুনতে হচ্ছে।
আমরা কেউ এ বিধিনিষেধকে তোয়াক্কা করছি না বিধায় সারাদেশে করোনা ভাইরাসে সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যা দিনদিন ক্রমশঃ বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই প্রশাসন সহ আমাদের সকলকে সচেতন হওয়া খুবই প্রয়োজন।

Share This Post

আরও পড়ুন